প্রথম ম্যাচেই মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের মুখোমুখি। আইপিএলে এই একটি দল কলকাতা নাইট রাইডার্সের জন্য কেন যেন দুর্বোধ্য। হলোও তাই। নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কাছে ৪৯ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে শাহরুখ খানের দল।

ম্যাচ হারের পর অবশ্য অন্য তত্ত্ব দাঁড় করিয়েছেন কেকেআর অধিনায়ক দিনেশ কার্তিক। নিজেদের ঘাড়ে দোষ না চাপিয়ে কার্তিক দোষ দিলেন আবহাওয়াকে। জানালেন, আরব আমিরাতের প্রচণ্ড গরমে কাহিল ক্রিকেটাররা। যে কারণে নিজেদের খেলা নাকি খেলতে পারেনি কার্তিকরা।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কাছে আইপিএলের ইতিহাসে এ নিয়ে ছাব্বিশ বারের মধ্যে ২০ বারই হারতে হল কেকেআরকে; কিন্তু নাইট অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক এখনই দলের কড়া সমালোচনার রাস্তায় হাঁটতে নারাজ। বুধবার ম্যাচ হেরে পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে নাইট অধিনায়ক বলেন, ‘আমাদের উন্নতির প্রচুর জায়গা আছে। ব্যাটিংয়ে, বোলিংয়ে। মেনে নিচ্ছি, আমরা একেবারেই ভাল খেলিনি আজ; কিন্তু কে কোথায় ভুল করেছে, সে সব নিয়ে বলতে চাই না। ঠিক আছে। ছেলেরা বুঝতে পারছে কোথায় ভুলটা হল।’

কেকেআর যাদের গতবারের নিলাম থেকে প্রচুর অর্থ দিয়ে কিনেছিল, সেই ইয়ন মরগ্যান এবং প্যাট কামিন্স দু’জনেই এ দিন সুপারফ্লপ। সেটা কি চিন্তার নয়? নাইট অধিনায়কের জবাব, ‘একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে। কামিন্স আর মরগ্যান দু’জনেই নিজেদের কোয়ারান্টাইন শেষ করে আজ খেলতে নেমে পড়েছে। কাজটা কিন্তু খুব একটা সহজ নয়। এখানকার পরিবেশ সম্পূর্ণ আলাদা। প্রচণ্ড গরম এখানে।’

কার্তিককে জিজ্ঞাসা করা হয়, তিনি নিজেও বা কেন টপ অর্ডার নিয়ে অত নাড়াচাড়া করতে গেলেন? নাইট কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালামের সঙ্গে কি তার এ নিয়ে কথা হয়েছে? উত্তরে কিছুটা অসন্তুষ্ট কার্তিক বলে দেন, ‘না। সময় পাইনি। আপনাকে পরের ম্যাচের আগে জানিয়ে দেব।”

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স অধিনায়ক রোহিত শর্মা কেকেআরের বিপক্ষে ম্যাচ জেতার পর অনেকটাই নিশ্চিন্ত। চেন্নাই সুপার কিংসের বিরুদ্ধে হার দিয়ে আইপিএল অভিযান শুরু করতে হয়েছিল মুম্বাইকে। প্রথম ম্যাচে রোহিত নিজেও রান পাননি।

কিন্তু বুধবারে কেকেআরকে শুধু হারালেন না। একই সঙ্গে ম্যাচ সেরার ট্রফিও নিয়ে গেলেন। রোহিত বলেন, ‘আমরা শুধু চেয়েছিলাম, নৃশংস ক্রিকেট খেলতে। সেই আমাদের প্ল্যান ছিল। নিজের ইনিংস নিয়ে বলতে হলে বলব, গত কয়েক মাস আমি ক্রিকেট খেলিনি। চেয়েছিলাম, ক্রিজে নেমে একটু সময় কাটাতে। প্রথম ম্যাচে হয়নি; কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে হল।’

সঙ্গে হিটম্যান জুড়ে দেন যে, ওয়াংখেড়ের উইকেটের কথা ভেবে দল করা হলেও সেই টিম আমিরাতের উইকেটেও রেজাল্ট দিচ্ছে, ‘আমরা তো জানতাম না যে, আইপিএলটা আমিরাতে হবে। ওয়াংখেড়ের কথা ভেবে পেস আক্রমণকে শক্তিশালী করেছিলাম। কিন্তু এখানেও দেখলাম, প্রথম দিকে বল ভাল সিম করল। তবে একটা জায়গায় আামদের উন্নতি করতে হবে। আমি শেষ দিকটায় ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। সেটা হলে চলবে না। একজন সেট ব্যাটসম্যানকে একদম শেষ পর্যন্ত থেকে আসতে হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *