আজকের ম্যাচের তেওয়াটিয়া তার উজ্জল দৃষ্টান্ত। স্মিথের বিদায়ে দলের রানের চাকা সচল রাখার জন্য টিম ম্যানেজমেন্ট তেওয়াটিয়াকে ক্রিজে পাঠায়।

কিন্তু একি কান্ডা একের পর এক বল ডট দিতে দিতে ম্যাচ হাত ছাড়া করে দিচ্ছিল সে একাই। অপর দিকে দুর্দান্ত খেলতে থাকা সাঞ্জুকেও নার্ভাস করে দিচ্ছিল সে।

এমনকি সাঞ্জু স্যামসাং তাকে স্ট্রাইক দিতে চাচ্ছিল না। কারণ একে পর এক বল মিস করে যাচ্ছিলএবং সাথে দলকে হারা দিকে নিয়ে যাচ্ছিল।

সঞ্জু স্যামসাং এর বিদায়ে যখন ই রাজেস্থানের হার টা সময়ের ব্যাপার ছিল ঠিক সেই মুহূর্তে আচমকা এক জ্বীন এসে ভর করে তিওয়াটিয়ার উপর।

কট্রেলের এক ওভারে ৫ টি ছক্কা মেরে ম্যাচ জমিয়ে তুলে ঐ ভিলেনই। যাকে ঘন্টা খানেক আগেই টিভের সামনে থাকা দর্শক গালি দিচ্ছিল।

শেষ অব্ধি ৭ টা বিশাল ছক্কায় ৩১ বলে ৫৩ রানের ইনিংস খেলে আইপিএলের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান চেজ করতে সক্ষম হয় রাজেস্থান রয়েল।

দিন শেষ এইজন্য হয়তো আইপিএল কে বিশ্বের সেরা টি-২০ শো বলা হয়। শারজাহ স্টুডিয়াম স্বাক্ষী থাকবে রাহুল তিওয়াটিয়ার এক ওভারে ৫ ছক্কা সাথে সর্বোচ্চ রান চেইজের জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *