আইপিএল মানে টানটান উত্তেজনা। আইপিএল মানে প্রতি মুহূর্তেই নাটকীয়তা। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএল আজ টানটান উত্তেজনায় রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু এবং মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এর মধ্যকার ম্যাচে টাই হয়েছিল।

প্রথমে ব্যাট করে তিন ব্যাটসম্যান দেবদুত পাড্ডিকাল, অ্যারোন ফিঞ্চ এবং এবি ডি ভিলিয়ার্সের বিধ্বংসী ব্যাটিং এ মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে ২০২ রানের টার্গেট দিল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ঈশান কিশান এবং কেরন পোলার্ড এর দুর্দান্ত ব্যাটিং ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ২০১ রান সংগ্রহ করে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। সুপার ওভারে ৮ রানের টার্গেটে ম্যাচে জয়লাভ করে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতেই দেবদুত পাড্ডিকাল এবং অ্যারোন ফিঞ্চ মিলে ৮১ রানের জুটি গড়ে তোলেন। ৩৫ বলে এ সময় ৫২ রান করে আউট হন ফিঞ্চ। ৭টি বাউন্ডারির সঙ্গে ১টি ছক্কার মার মারেন তিনি।

দেবদুত পাড্ডিকাল করেন ৪০ বলে ৫৪ রান। ৫টি বাউন্ডারির সঙ্গে ২টি ছক্কার মারও মারেন এই তরুণ ব্যাটসম্যান। এবি ডি ভিলিয়ার্স অপরাজিত থেকে যান ২৪ বলে ৫৫ রান করে। মূলতঃ শেষ দিকে ডি ভিলিয়ার্স ঝড়েই স্কোর ২০০ পার করতে পারে ব্যাঙ্গালুরু।

২৪ বলে ৪টি বাউন্ডারির সঙ্গে সমান ৪টি ছক্কা মেরে ৫৫ রান করে অপরাজিত থেকে যান ডি ভিলিয়ার্স। ১০ বলে ২৭ রান করে অপরাজিদ থাকেন শিবাম দুবে। তবে বিরাট কোহলি ছিলেন পুরোপুরি ব্যার্থ। ১১ বল খেলে ৩ রান করে আউট হন তিনি। ট্রেন্ট বোল্ট ২টি এবং রাহুল চাহার নেন ১টি উইকেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ১৬ রানের মধ্যেই ২ উইকেট হারিয়ে প্রথমে চাপে পড়ে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। ৮ বলে ৮ রান করে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা। কোন রান করেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন সূর্যকুমার যাদব। তবে দল আরো বিপদে পড়ে যখন দলীয় ৩৯ রানের মাথায় ১৫ বলে ১৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন কুইন্টন ডি কক।

এরপর হার্দিক পান্ডিয়াকে সাথে নিয়ে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন ঈশান কিশান। ভালো খেলতে থাকা হার্দিক পান্ডিয়া দলীয় ৭৮ রানের মাথায় ১৫ রান করে আউট হলে ব্যাটিংয়ে নেমে ঈশান কিষানকে সাথে নিয়ে হাল ধরেন কেরন পোলার্ড।

দলীয় ১৭ ওভারে অ্যাডাম জাম্পার এক ওভারে ২৭ রান নিয়ে খেলা জমিয়ে দেন কেরন পোলার্ড। এর পরের চাহালের ওভারে এই দুই ব্যাটসম্যান নেন ২০ রান। ২০ বলে ৫ ছক্কা হাঁকিয়ে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন কেরন পোলার্ড। শেষ ১২ বলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এর জন্য প্রয়োজন ছিল ৩১ রানের।

নবদীপ সায়নীর ১৯ তম ওভারে ১২ রান সংগ্রহ করে দুই ব্যাটসম্যান। শেষ ওভারে ইসুরু উদানা তৃতীয় এবং চতুর্থ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে খেলা জমিয়ে দেন ঈশান কিশান।

৫৮ বলে নয়টি ছক্কা এবং দুটি চারের সাহায্যে ৯৯ রানে আউট হন ঈশান কিশান। এবং শেষ বলে চার হাঁকিয়ে ম্যাচ টাই করেন কেরন পোলার্ড। ২৪ বলে পাঁচটি ছক্কা এবং তিনটি চারের সাহায্যে ৬০ রান করে অপরাজিত থাকেন কেরন পোলার্ড। আজকের ম্যাচে সর্বমোট ২৬টি ছক্কা হাকিয়েছেন দুই দল মিলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *