শিখর ধাওয়ানের অনবদ্য শতরান৷ শেষ ওভারে অক্ষর পটেলের দুর্দান্ত ব্যাটিং৷ যার সৌজন্যে চেন্নাইকে হারিয়ে শেষ চারে যাওয়া অনেকটই নিশ্চিত করে ফেলল দিল্লি ক্যাপিটালস৷

১০১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে কার্যত একাই চেন্নাইকে হারিয়ে দিলেন শিখর ধাওয়ান৷ ওপেন করতে নেমে মাত্র ৫৭ বলে শতরান পূর্ণ করেন দিল্লির এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান৷

প্রথমে ব্যাট করে এ দিন ৪ উইকেটে ১৭৯ তুলেছিল চেন্নাই৷ রান তাড়া করতে গিয়ে শিখর ধাওয়ানের শতরান সত্ত্বেও শেষ ওভারে জয়ের জন্য ১৬ রান প্রয়োজন ছিল দিল্লির৷

কিন্তু রবীন্দ্র জাদেজার বলে পর পর ছক্কা মেরে দলকে জয় এনে দেন অক্ষর পটেল৷ মাত্র ৫ বলে ২১ রান করেন তিনি৷ ১ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় দিল্লি৷ ৫৮ বলে ১০১ রান করে নট আউট থাকেন ধাওয়ান৷

টসে জিতে এ দিন প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন চেন্নাই অধিনায়ক এম এস ধোনি৷ শুরুতে স্যাম কুরানকে হারিয়ে ধাক্কা খায় সিএসকে৷ যদিও ফাফ ডুপ্লেসি (৫৮), শেন ওয়াটসন(৩৬) এবং অম্বাতি রায়ডুর (৪৫) রানের ইনিংসের সৌজন্যে ঘুরে দাঁড়ায় তারা৷

তবে শেষ দিকে রবীন্দ্র জাদেজা মাত্র ১৩ বলে ৩৩ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে দলের স্কোরকে ১৭৯-তে নিয়ে যান৷ তবে এ দিনও ব্যাটে রান পাননি এম এস ধোনি৷

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খুব ভাল হয়নি দিল্লির৷ দ্রুত ফিরে যান ওপেনার পৃথ্বী শাহ এবং তিন নম্বরে নামা অজিঙ্কা রাহানে৷ কিন্তু উল্টো দিকে কী ঘটছে তা তোয়াক্কা না করেই ধুন্ধুমার ব্যাটিং শুরু করেন শিখর ধাওয়ান৷

চেন্নাইয়ের কোনও বোলারকেই রেয়াত করেননি ভারতীয় ক্রিকেটের ‘গব্বর’৷ তবে রবীন্দ্র জাদেজার বলে তাঁর ক্যাচ মিস করেন শার্দুল ঠাকুর৷

এ দিন চেন্নাই দলে ফের সুযোগ দেওয়া হয় কেদার যাদবকে৷ যা নিয়ে ট্যুইটারে রীতিমতো ট্রোল করতে শুরু করেন চেন্নাই সমর্থকরা৷ ম্যাচ শেষে ধোনি জানান কেনো শেষ ওভারে ব্রাভো কে না দিয়ে জাদেজাকে দিয়েছে।

তার ভাষ্যমতে, “ব্রাভো ফিট ছিলো না। শেষ রেস্ট নেওয়ার জন্য মাঠের বাহিরে গিয়েছিল এবং মাঠে আসার মত তার কোনো অবস্থাই ছিল না। সেই কারণে জাদেজা কে বল দিতে হয়েছে। আমার কাছে কারান ও জাদেজা দুটি অপশন ছিল। আমি জাদেজা কে পছন্দ করেছি। কিন্ত তা সফল হয়নি।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *